• বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন
  • English English

এক লাফে ২০ টাকা কমলো পেঁয়াজের দাম!

প্রতিবেদকের নাম / ২৭ শেয়ার
প্রকাশিত : রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০

হঠাৎ করে রাজবাড়ীর বাজারে বেড়েছে দেশী পুরাতন পেঁয়াজের আমদানি। এ কারণে গত দুই দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি দেশী পেঁয়াজ ২০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬২ টাকা কেজি দরে। গত দুই দিন আগে প্রতি কেজি দেশী পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা থেকে ৮৫ টাকা কেজি দরে। কিন্তু বাজারে হঠাৎ পুরাতন পেয়াজের আমদানি বেড়ে যাওয়ায় প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা থেকে ৬২ টাকা কেজিতে।

এচিকে বাজারে আলুর ঘাটতি দেখা দেওয়ায় আলুর দাম কমছেনা। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজিতে। অথচ দেশের সব স্থানে প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৩২ টাকা থেকে ৩৫ টাকায়। অধিকাংশ দোকানে আলু বিক্রি করতে দেখা যায়নি ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানার ভয়ে। রোববার সকালে রাজবাড়ীর বড় বাজারে গিয়ে দেখা যায় বাজারের এ চিত্র।

ক্রেতারা বলছেন, পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমলেও আলু সহ অন্যান্য সবজির দাম এখনও কমেনি। এসময় বাজারের এমন উদ্ধগতি থাকায় তাদের কেনাকাটায় সমস্যায় হচ্ছে। এসময় সব ধরনের সবজির দাম হওয়া উচিত ছিল ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা কেজির মধ্যে।

বিক্রেতারা জানান, বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত জরিমানা করার কারণে বাজারে ব্যবসায়ীরা আলু আমদানি করছেননা। তাদের প্রতি কেজি আলু কিনতে হয় ৩৮ টাকা থেকে ৪২ টাকা কেজিতে অথচ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৩৫ টাকার বেশিতে আলু বিক্রি করা হলে জরিমানা করা হচ্ছে। জরিমানার কারনে তাদের ক্রয় দরের চাইতে বিক্রি দর বাধ্য হয়ে কম করতে হয় বলে তারা বর্তমানে আলু আমদানি কমিয়েছেন। এই কারণে বাজারে আলুর ঘাটতি দেখা দিয়েছে। যেটুকু পাওয়া যাচ্ছে তাও বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজিতে। একারণে তারা আলু বিক্রি করছেন কম। তবে ৪৫ টাকার কমে তারা আলু বিক্রি করছেন না বেশি দরে কেনার কারনে। তবে বাজারে অন্যান্য সবজির দাম কিছুটা কমলেও ফুলকপি, বর বটি, শিম, পটল ৫০ টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে। ফুলকপি ৮০ টাকা ও শিম ৮০ থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।


এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ

পুরাতন সব সংবাদ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০